জেনে নিন বেল কি এবং বেলের উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

জেনে নিন বেল কি এবং বেলের উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ
Wikimedia Commons

শীতের শেষে এবং গ্রীষ্মের শুরুতে আবহাওয়ার পরিবর্তন খুব দ্রুত শরীরে প্রভাব ফেলে। তার কারণে তরুণ-বৃদ্ধ প্রায় সবাই সমস্যায় পড়েছেন। এ সময় বেল খেতে পারেন। এর হাজারো উপকারিতা রয়েছে। প্রাচীন কাল থেকেই আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে বেল একটি দৃঢ় স্থান নিয়েছে। তাই বেল বাজিয়ে সুস্থ থাকতে পারেন।

বেলের গুণের শেষ নেই

এক গ্লাস ঠান্ডা বেলের শরবত এই গরমে তাত্ক্ষণিক রিফ্রেশার। এছাড়া বেলের রয়েছে অনেক গুণ। এটি ভিটামিন সি, ভিটামিন এ, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস এবং পটাসিয়াম সমৃদ্ধ। চলুন দেখে নেওয়া যাক বেলের পুষ্টিগুণ।

প্রতি ১০০ গ্রাম বেলে রয়েছে ৮৭ কিলোক্যালরি, পানির পরিমাণ ৭৭.৫ গ্রাম, শর্করা ১৮.৮ গ্রাম, চর্বি ২.৬ গ্রাম, চর্বি ০.২ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৩৮ মিলিগ্রাম, আয়রন ০.৬ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি-1 ০.০০ শূন্য ৩ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি-2 জিরো ৩ মিলিগ্রাম। ২ মিলিগ্রাম এবং ভিটামিন সি ৯ মিলিগ্রাম।

কচি বেল টুকরো টুকরো করে রোদে শুকিয়ে নিন, একে বেল শুট বলে। যাদের আলসার আছে তারা বেলের শুটের সাথে বার্লি রান্না করে নিয়মিত খেলে আলসার দ্রুত সেরে যাবে। বেল পেট ঠান্ডা করে। গরমের সময় পরিশ্রমের পর বেলের শরবত পান করলে ক্লান্তি দূর হয়। বেলের ভিটামিন এ চোখের বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণ অঙ্গকে পুষ্টি জোগায়। ফলে চোখের বিভিন্ন রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

পেটের বিভিন্ন রোগ সারাতে বেল খুবই কার্যকরী। নিয়মিত কাঁচা বেল খেলে দীর্ঘদিনের আমাশয় ও ডায়রিয়া দ্রুত সেরে যায়। বেলের ত্বক পিচ্ছিল হওয়ায় এই ফলটি পেটের জন্য উপকারী। খাবার হজমেও সাহায্য করে। তাই কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।

বেলে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে, যা ব্রণ নিরাময়ে সাহায্য করে। যাদের পাইলস আছে তাদের জন্য নিয়মিত বেল খাওয়া উপকারী। এতে ভিটামিন সি রয়েছে। ভিটামিন সি গ্রীষ্মকালীন অনেক অসুখ দূরে রাখে।

জন্ডিসের সময় পাকা বেল মরিচের সাথে শরবত পান করলে উপকার পাওয়া যায়। বেল নিয়মিত সেবন কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। সর্দি হলে এক চামচ বেল পাতার রস খেলে সর্দি ও জ্বর থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

আজকাল শিশুরা জুসের প্যাকেট ও কোমল পানীয়তে আসক্ত। এসব বাহ্যিক রসের পরিবর্তে এই গরমে শিশুদের ঘরে তৈরি বিলের শরবত খাওয়াতে হবে।

বেল একটি পুষ্টিকর ও উপকারী ফল। কাঁচা ও পাকা উভয়ই সমান উপকারী। বেল কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে এবং আমাশয়ে উপকারী। অর্ধ-পাকা সেদ্ধ পান আমাশয়ে বেশি কার্যকর। বেলের শরবত হজমশক্তির উন্নতি ঘটায় এবং টনিক। বিল পাতার রস মধুর সাথে মিশিয়ে পান করলে চোখের ছানি ও জ্বালাপোড়া উপশম হয়।

বেল পাতার রস, মধু ও লাল মরিচের গুঁড়ো মিশিয়ে খেলে জন্ডিস সেরে যায়। শিশুর স্মৃতিশক্তি বাড়াতে বেল খুবই উপকারী। এবার জেনে নিন বেলের অন্যান্য উপকারিতা সম্পর্কে...

* কোষ্ঠকাঠিন্য কমাতে বেলের কার্যকারিতা সবারই জানা। বেল পেট পরিষ্কার করে, এটা বৈজ্ঞানিকভাবেও সত্য। আপনি যদি টানা ৩ মাস নিয়মিত বেল খান তাহলে এই সমস্যা থেকে সহজেই মুক্তি পাবেন।

* আলসারের ওষুধ হিসেবে বেল। পাকা সুপারি তে উপস্থিত ফাইবার আলসার দূর করতে খুবই কার্যকরী। সপ্তাহে তিন দিন বেলের শরবত খান। এ ছাড়া পাতা সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রেখে পরের দিন খেলেও আলসার অনেকাংশে কমে যায়।

* বেল ডায়াবেটিস কমায়। পাকা চন্দনে মিথানল নামে একটি উপাদান থাকে, যা রক্তে শর্করার পরিমাণ কমাতে বিস্ময়কর কাজ করে। তবে এক্ষেত্রে শরবত নয়, বেল খেতে হবে।

* আর্থ্রাইটিস কমাতে দারুণ কার্যকারিতা। খুব কম লোকই এখন ব্যথা ছাড়াই আছে। নিয়মিত বেল খেলে বাতের সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

* শক্তি বৃদ্ধিতে বেলের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ১০০ গ্রাম বেল ১৪০ ক্যালোরি শক্তি সরবরাহ করে। বেল মেটাবলিক গতিও বাড়ায়। বালি ভিটামিন সি সমৃদ্ধ।এই ভিটামিন সি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

* বেল রক্তচাপ কমায়। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে বেল জুডিমেলা লোড। পাকা বেল শরবত হিসাবে বা হিসাবে খাওয়া যেতে পারে।

* ক্যান্সারেও বেল খুবই উপকারী। এটিতে অ্যান্টি-প্রলিফারেটিভ এবং অ্যান্টি মিউটাজেন বৈশিষ্ট্য রয়েছে। যা ক্যান্সার গঠনে বাধা দেয়]।


সোর্সঃ- ekushey-tv / ntvbd

পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
মন্তব্য নেই
মন্তব্য যোগ করুন
comment url