অনলাইনে নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণের সঠিক নিয়ম

নতুন জন্ম নিবন্ধন


আপনি যদি অনলাইনে  আপনার সন্তান বা অন্য কারো জন্ম নিবন্ধন করতে চান তবে এই পোস্টটি আপনার জন্য খুবই উপযোগী হবে। কারণ অনলাইনে নতুন আবেদন ফরম পূরণ করতে কী কী প্রয়োজন (Jonmo Nibondhon Form Online) এবং অনলাইনে সঠিকভাবে ফরম পূরণের নিয়মাবলী ছবি সহ বিস্তারিত দেখানো হয়েছে।

অনলাইন নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন – New Birth Registration Application

হাতে লেখা ফরমের জন্য অনলাইনে নতুন জন্ম নিবন্ধনের আবেদনের সময়সীমা বর্তমানে হাতে লেখা ফর্ম পূরণ করে আর কোনো আবেদন করা যাবে না। আপনাকে অনলাইনে ফর্ম পূরণ করতে হবে।

নতুন জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন ২০০৪ অনুযায়ী নতুন সন্তানের জন্মের ৪৫ দিনের মধ্যে নিবন্ধন করা বাধ্যতামূলক। এমনকি যদি আপনি বিভিন্ন সমস্যার কারণে ৪৫ দিনের মধ্যে এটি করতে না পারেন, আমার পরামর্শ হল ৫ বছরের মধ্যে আপনার সন্তানের জন্ম সনদ করুন। অন্যথায়, এটি খুব ঝামেলা, ৫ বছর বয়সের পরে, নিবন্ধন করতে অনেক অতিরিক্ত কাগজপত্র প্রয়োজন হয় এবং আপনাকে আরও ঝামেলার মধ্য দিয়ে যেতে হবে।

নিবন্ধন ফি তালিকা

জন্মের ৪৫ দিনের মধ্যে নিবন্ধন করা পিতামাতার কর্তব্য। অনেকেই বয়স ছোট করার চেষ্টা করেন, এটা করা ঠিক নয়, জন্ম যদি ভুল বা মিথ্যা দিয়ে শুরু হয় তাহলে জন্মের শুরুটা হয় মিথ্যা দিয়ে। আপনি যদি বিশ্বাস করেন যে চাকরি বা জীবিকা আল্লাহ তায়ালার হাতে, তাহলে এটা ভাবা ঠিক হবে না যে কয়েক বছর পরে জন্ম নিলে চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে।

কিন্তু আজ আমরা জানবো ফি কত? হ্যাঁ জন্ম নিবন্ধন ফি এবং মৃত্যু নিবন্ধন ফি একই হারে প্রদান করতে হবে। এখন অনলাইনে যেকোনো মৃত্যুর পত্র পেতে এটি আপনার জন্ম পত্র হোক বা না হোক, আপনাকে প্রথমে আপনার জন্ম সনদ করতে হবে এবং তারপরে আপনি আপনার মৃত্যু নিবন্ধন করতে পারবেন।

তাই সম্পূর্ণ জন্ম নিবন্ধন তা প্রাপ্তবয়স্ক হোক বা শিশু। জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন বিধিমালা, ২০০৭-এর বিধি ২৩-এর উপ-বিধি (৭) অনুযায়ী, সরকার জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য ফি সংশোধন করেছে। এর পরে ফি পুনর্নির্ধারণ করা হয়নি।

  • জন্ম বা মৃত্যুর ৪৫(পঁয়তাল্লিশ) দিন পর্যন্ত একজন ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু বিনামূল্যে নিবন্ধিত করা যেতে পারে।

  • ৪৫(পঁয়তাল্লিশ) দিন থেকে ৫ (পাঁচ) বছর পর্যন্ত জন্ম বা মৃত্যু, জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধন ২৫ টাকা ফি দিয়ে দেশে নিবন্ধন করা যাবে।

  • জন্ম বা মৃত্যুর ৫ (পাঁচ) বছর পরে, যে কোনও ব্যক্তি জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য (50 টাকা ফি সহ) দেশে নিবন্ধিত হতে পারেন।

  • জন্ম তারিখ সংশোধনের জন্য আবেদন ফি ১০০ টাকা।

  • জন্মতারিখ, পিতার নাম, মায়ের নাম, ঠিকানা ইত্যাদি ব্যতীত অন্য তথ্য সংশোধনের জন্য আবেদন ফি ৫০ টাকা বাংলাদেশে জন্মগ্রহণ করলে।

  • বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় তথ্য সংশোধনের পর মূল পত্র বা পত্রের অনুলিপি সরবরাহ বিনামূল্যে পাওয়া যায়।

  • ৫০ টাকা ফি জমা দিয়ে বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় নকল সরবরাহ পাওয়া যাবে।

অনলাইনে নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণের সঠিক নিয়ম – New Jonmo Nibondhon Form Online

আমরা অনেকেই জানি না কিভাবে অনলাইনে নতুন নিবন্ধন করতে হয়। যেখানে আবেদন করতে হবে।  জন্ম সনদ আবেদন ফরম পূরণের সঠিক নিয়ম এই পোস্টে বিস্তারিত শেয়ার করা হয়েছে। চলুন দেখা যাক যে অনলাইন আবেদনের জন্য পুরানো ওয়েবসাইট পরিবর্তন করা হয়েছে এবং একটি নতুন ওয়েবসাইট চালু করা হয়েছে। বর্তমানে নতুন লিঙ্ক হল- https://bdris.gov.bd/

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করার নিয়ম

নতুন নিবন্ধনের জন্য আবেদন অনলাইনে করতে হবে। নতুন নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন। আশা করি, আপনি বাড়িতে এটি করতে পারেন.

  • আবেদনকারীর সঠিক তথ্য
  • যদি শিশুর বয়স সীমা ০ থেকে ৪৫ দিনের মধ্যে হয়
  • নিবন্ধনকারীর পরিচয় এবং জন্মস্থানের ঠিকানা
  • পিতা ও মাতার তথ্য (NID)
  • বর্তমান এবং স্থায়ী ঠিকানা - বর্তমান এবং স্থায়ী ঠিকানা

নতুন নিবন্ধন এর জন্য আবেদন করতে কি কি লাগবে?

প্রথমত, ধাপ ১- আবেদনকারীর প্রয়োজনীয় তথ্য ও নথি সংগ্রহ।

 জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করার জন্য যা প্রয়োজন নতুন জন্ম সনদের জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত নথি এবং তথ্য সংগ্রহ করার পর অনলাইনে আবেদন করুন। আবেদন করার সময় আপনি সঠিকভাবে সমস্ত তথ্য দিতে পারেন। জন্ম সনদের জন্য আবেদন করার জন্য নিম্নলিখিত তথ্য ও নথিপত্র প্রয়োজন।

শিশুর বয়স সীমা ০থেকে ৪৫ দিনের মধ্যে হলে: কী প্রয়োজন তা নীচে দেওয়া হল

  • ইপিআই (ইমিউনাইজেশন) কার্ড ইপিআই হল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা দ্বারা পরিচালিত একটি টিকাদান কর্মসূচি যার লক্ষ্য বিশ্বব্যাপী সমস্ত শিশুকে কভার করা।
  • পিতা ও মাতার ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি (বাংলা ও ইংরেজিতে থাকতে হবে) 
  • পিতা ও মাতার NID Card বা জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি
  • বাড়ির হোল্ডিং নম্বর এবং হাল সনের হোল্ডিং ট্যাক্সের রশিদ থাকতে হবে
  • আবেদনকারীর পিতা-মাতা/অভিভাবকের মোবাইল নম্বর দিতে হবে

যদি শিশুর বয়স ৪৬ থেকে ৫ বছর হয়:

  • ইপিআই (টিকাকরণ) কার্ড / স্বাস্থ্যকর্মীর প্রত্যয়ন (স্বাক্ষর এবং সীল সহ)
  • পিতা ও মাতার অনলাইন জন্ম নিবন্ধনের অনুলিপি (বাংলা ও ইংরেজি বাধ্যতামূলক)
  • পিতা ও মাতার জাতীয় পরিচয়পত্র বা NID কার্ডের কপি
  • প্রযোজ্য হলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের সার্টিফিকেট (স্বাক্ষর ও সীলমোহর সহ)
  • বাড়ির হোল্ডিং নম্বর এবং হাল সনের হোল্ডিং ট্যাক্সের রশিদ
  • আবেদনকারীর পিতা-মাতা/অভিভাবকের মোবাইল নম্বর অবশ্যই প্রদান করতে হবে
  • আবেদনপত্র জমা দেওয়ার সময় ১ কপি রঙিন পাসপোর্ট সাইজের ছবি দিতে হবে।

শিশু বা ৫ বছরের বেশি ব্যক্তিদের জন্য:

  • বয়স প্রমাণের জন্য ডাক্তারের কাছ থেকে সার্টিফিকেট (এমবিবিএস বা তার বেশি ডিগ্রি বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল কর্তৃক স্বীকৃত সিল স্বাক্ষর সহ জমা দিতে হবে

  • প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্তি, সরকার কর্তৃক পরিচালিত জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট বা শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক পরিচালিত মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট

  • পিতা ও মাতার অনলাইন জন্ম নিবন্ধনের অনুলিপি (বাংলা ও ইংরেজি বাধ্যতামূলক)

  • পিতা ও মাতার জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি

  • অথবা, জন্মস্থান বা স্থায়ী ঠিকানার প্রমাণের জন্য পিতা/মা/দাদা-দাদিদের দ্বারা স্থায়ী ঠিকানা হিসাবে ঘোষিত আবাসের বিরুদ্ধে আপডেট করা ট্যাক্স পেমেন্ট পত্র।

  • অথবা, জমি বা বাড়ি ক্রয়ের দলিল, ভাড়া এবং কর প্রদানের রশিদ। (নদী ভাঙ্গন বা অন্য কোন কারণে স্থায়ী ঠিকানা হারিয়ে গেলে)

পরবর্তী ধাপ ২- নতুন নিবন্ধনকারীর পরিচয় এবং জন্মস্থানের ঠিকানা

অনলাইনে নতুন আবেদনের জন্য প্রথমে আপনার কম্পিউটার থেকে https://bdris.gov.bd/ এই লিঙ্কে যান। এখানে আপনি নিচের ছবির মত একটি পেজ পাবেন।

অনলাইনে নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণের সঠিক নিয়ম



  • আবেদনপত্র পূরণ করুন
  • আপনি যেখানে করতে চান সেই ঠিকানাটি নির্বাচন করুন।
  • নতুন ফরম পূরণের নিয়ম

ধরুন আপনি আপনার এলাকার ভিত্তিতে ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা বা সিটি কর্পোরেশন থেকে জন্ম নিবন্ধন করতে চান, এখানে নিবন্ধনাধীন শিশু বা ব্যক্তির ঠিকানা নির্বাচন করুন এবং পরবর্তী বোতামে ক্লিক করুন।

আপনি যদি বাংলাদেশ দূতাবাসে নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে চান তবে এটি নির্বাচন করুন

অনলাইনে নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণের সঠিক নিয়ম


নামের ২টি অংশ থাকলে নামের প্রথম অংশের বক্সে ১ম অংশ এবং নামের শেষ অংশে ২য় অংশ লিখুন।

নামের ৩টি অংশ থাকলে যেমন জিয়াউল হক জিয়া 

  •  নামের প্রথম অংশের প্রথম অংশে জিয়াউল  এবং শেষ 2 অংশে নামের শেষ অংশে হক জিয়া লিখুন।

  • নামটি যদি ১ শব্দ হয় অর্থাৎ জিয়া নামের অংশ ১ হয়, তাহলে প্রথম অংশটি খালি থাকবে। শুধু নামের শেষ অংশে নাম লিখবেন জিয়া

একইভাবে, Ziaul Haque Zia প্রথম অংশে Ziaul লিখবেন এবং শেষের ২ অংশে Haque Zia নামের শেষ অংশটিও ইংরেজিতে পূরণ করবেন। এছাড়াও, অন্যান্য বিবরণ এবং জন্ম ঠিকানা সঠিকভাবে পূরণ করুন।

অবশেষে ডান পাশের পরবর্তী বোতামে ক্লিক করুন।

পরবর্তী ধাপ ৩- পিতা ও মাতার সঠিক তথ্য - Father’s and Mother’s Information

  • এই ধাপে নিবন্ধনের অধীনে থাকা শিশুর পিতামাতা অনলাইন বা ডিজিটাল জন্ম সনদ নম্বর ন্যূনতম ১৭ অক্ষর এবং জাতীয়তা দিতে হবে। আবেদনপত্র পূরণ করুন

  • পরবর্তী ধাপে এখানে পিতামাতার ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন নম্বর প্রবেশ করালে নামগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে চলে আসবে। আপনি এগুলো এডিট করতে পারবেন না .

  • শেষ ধাপ , অভিভাবকদের প্রথমেই পরীক্ষা করতে হবে জন্ম সনদ ডিজিটাল বা অনলাইন কিনা। পিতামাতার নিবন্ধন তথ্য অনলাইনে না থাকলে সন্তানের জন্ম সনদ আবেদন করা যাবে না।

জন্ম নিবন্ধন যাচাইকরণ

তবে, নিবন্ধনাধীন ব্যক্তির জন্ম তারিখ ২০০০ বা তার আগে হলে, পিতামাতার নাম প্রবেশ করানো যেতে পারে এবং পিতামাতার নিবন্ধন নম্বর প্রবেশ করানো যেতে পারে।

অনলাইনে নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণের সঠিক নিয়ম




উল্লেখিত ক্ষেত্রগুলি পূরণ করার পরে পরবর্তী বোতামে ক্লিক করুন।

পরবর্তী ধাপ ৪- স্থায়ী এবং বর্তমান ঠিকানা -  Present and Permanent Address

এই পর্যায়ে আপনাকে বর্তমান এবং স্থায়ী ঠিকানার সঠিক তথ্য প্রদান করতে হবে। নিচের ছবিটি দেখুন।

অনলাইনে নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণের সঠিক নিয়ম



এখান থেকে কোনটিই নয় বাটনে ক্লিক করুন। এর পর নিচের ছবির মতো ঠিকানা দেওয়ার অপশন পাবেন।


অনলাইনে নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণের সঠিক নিয়ম


নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণের নিয়ম

স্থায়ী ঠিকানার ক্ষেত্রে, জন্মস্থান এবং স্থায়ী ঠিকানা একই হলে চেক বক্সে টিক দিন (লাল বাক্সে একটি টিক দিয়ে চিহ্নিত)। এছাড়াও, বর্তমান ঠিকানার ক্ষেত্রে, যদি স্থায়ী ঠিকানা এবং বর্তমান ঠিকানা একই হয় (লাল টিক দিয়ে চিহ্নিত), চেক বক্সে টিক দিন।

  • যদি অন্য ঠিকানা থাকে, ঠিকানা নির্বাচন করুন এবং গ্রাম, বাড়ি এবং রাস্তা নম্বর লিখুন। তারপর পরবর্তী বাটনে ক্লিক করুন।
  • এখান থেকে নতুন ফর্ম পান

চূড়ান্ত ধাপ ৫– আবেদনকারীর তথ্য

এই পর্যায়ে, যে ব্যক্তি এই নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করছেন, তাকে তার তথ্য দিতে হবে। সাধারণত একজন শিশুর নিবন্ধনের জন্য দায়ী ব্যক্তি তার অভিভাবক যেমন পিতা, মাতা, পিতামহ, পিতামহী, মাতামহ, মাতামহী বা আইনগত অভিভাবক। তাই তারা সন্তানের জন্য আবেদন করে।

আপনি নিজেও আপনার জন্ম সনদের জন্য আবেদন করতে পারেন। আপনি যদি নিজেকে প্রয়োগ করেন তবে নিজেকে নির্বাচন করুন। অথবা, বাবা, মা, দাদা, দাদী ইত্যাদি নির্বাচন করুন।

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন

উপরের সবকিছু ঠিক থাকলে ডান পাশের পরবর্তী বাটনে ক্লিক করুন এবং আবেদনটি সম্পূর্ণ করুন।

এবং যদি ফর্মটি সফলভাবে পূরণ করা হয় বা জমা দেওয়া হয় তবে আপনি প্রিন্ট করার বিকল্প পাবেন। আবেদনপত্র প্রিন্ট করুন এবং হার্ড কপি সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ বা পৌরসভা বা সিটি কর্পোরেশন অফিসে জমা দিন। আবেদনের সাথে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে।

পরে আপনি আপনার আবেদন অনুমোদিত হয়েছে কি না তা জানতে অনলাইনে আবেদন পরীক্ষা করতে পারেন।

সাধারণত সন্তানের জন্মের ৪৫দিনের মধ্যে নিবন্ধন করা ভাল। তবে শিশুর ৫ বছরের মধ্যে করা সুবিধাজনক। বয়স এর বেশি হলে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হয় যা খুবই ঝামেলার।

জন্ম নিবন্ধন কিভাবে করতে হয়?

একটি শিশু বা ব্যক্তির জন্ম সনদ করতে, প্রথমে অনলাইনে আবেদন করুন। তারপর প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের ফটোকপি এবং অনলাইন আবেদনের প্রিন্ট কপি সংশ্লিষ্ট সিটি কর্পোরেশন, বা পৌরসভা বা ইউনিয়ন পরিষদ অফিসে জমা দিতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন কি দুবার করা যাবে?

উত্তর: না, নিবন্ধন ২য় বার করা যাবে না। এটি করলে সার্ভারে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ডুপ্লিকেট এন্ট্রি দেখাবে।

বিবাহিত মহিলাদের ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধনে স্বামীর নাম লেখা যাবে কি?

স্বামীর নাম লেখার সুযোগ নেই। পিতা ও মাতার নাম লিখতে হবে।

বাবা-মায়ের জন্ম নিবন্ধন না থাকলে কীভাবে নতুন আবেদন করবেন?

২০২২ সালের নতুন নীতি অনুসারে, ২০০১বা তার পরে জন্মগ্রহণকারী সমস্ত শিশুর নিবন্ধন করতে পিতা ও মাতার জন্ম সনদ বাধ্যতামূলক। পিতামাতার জন্ম নিবন্ধন নম্বর ছাড়া সন্তানের জন্ম সনদ করা যায় না।

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করার সময় 'পসিবল ডুপ্লিকেট' সমস্যার সমাধান কী?

অবশ্যই, নকল একই জেলার হলে, অনুমোদিত ব্যবহারকারী বা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বা উপ-পরিচালক (স্থানীয় সরকার) প্রয়োজনীয় অনুসন্ধান করে বিষয়টি নিষ্পত্তি করবেন। যদি 'ডুপ্লিকেট' একই জেলায় না হয়, তাহলে প্রথমে প্রশাসনিকভাবে ভিন্ন জেলায় অনুসন্ধান বা তদন্ত করতে যোগাযোগ করুন। নকলের পক্ষে কোন তথ্য না পাওয়া গেলে, আবেদনকারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করার পর আবেদনকারীর কাছ থেকে লিখিত বিবৃতি দিয়ে আবেদনটি অনুমোদিত হতে পারে যে তার জন্ম অন্য কোথাও নিবন্ধিত হয়নি। এক্ষেত্রে আবেদন সংক্রান্ত যাবতীয় নথি সংরক্ষণ করতে হবে।

যদি উপরে উল্লিখিত ৫ টি ধাপ বা প্যারামিটার মিলে যায় তাহলে 'সম্ভাব্য ডুপ্লিকেট' বা জালটি ১০০% 'ডুপ্লিকেট' বা জাল হিসাবে প্রদর্শিত হবে। পরামিতি হল ক. আবেদনকারীর নাম, খ. পিতার নাম, গ. মায়ের নাম, ঘ. রেজিস্ট্রেশন অফিসের নাম, এবং ঙ. জন্ম তারিখ সাধারণত 'ডুপ্লিকেট' হওয়ার সম্ভাবনা ০% হয় যদি জন্মতারিখ 'ডুপ্লিকেট' হিসাবে চিহ্নিত ব্যক্তিদের থেকে ৮/১০ বছর বা তার বেশি হয় বা যদি স্থায়ী ঠিকানা মেলে না।

নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদনের মুদ্রিত ফর্মের সাথে কী করবেন?

আপনি যখন নতুন নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেন, আপনি যে ফার্মটি পাবেন তা মূলত আপনার সমস্ত তথ্য যা পরে আপনার জন্ম পত্র তৈরি করতে ব্যবহার করা হবে।

এই তহবিলের সাথে আপনার বয়স অনুযায়ী প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ ইউনিয়ন পরিষদে জমা দিন। এবং আপনার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বরটি ইউনিয়ন পরিষদে আপনার জন্ম সনদ হয়ে গেলে একটি বার্তা আসবে।

আর মোবাইল ব্যবহারকারীরা রেজিস্ট্রেশন নম্বর দিয়ে ফর্ম প্রিন্ট করতে না পারলে কোনো সমস্যা নেই। আপনাকে সরাসরি কাগজে নিবন্ধন নম্বর লিখতে হবে এবং বয়স অনুযায়ী প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ ইউনিয়ন পরিষদে জমা দিতে হবে। ইউনিয়ন পরিষদে উপস্থিত সচিব রায় আপনার জন্য বাকি কাজ করবেন।

নিবন্ধন সম্পন্ন হলে আপনাকে জানানো হবে এবং জন্ম নিবন্ধনের সময় আপনাকে নির্দিষ্ট ফি দিতে হবে। সর্বশেষ নিয়ম অনুযায়ী, নতুন নিবন্ধন করতে ৫০ টাকা ফি দিতে হবে। কিন্তু বাংলাদেশে ইউনিয়ন পরিষদের সেক্রেটারিদের অবস্থা যে কেমন জানি, আশা করি বুঝতে পেরেছেন!

পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
মন্তব্য নেই
মন্তব্য যোগ করুন
comment url