অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করার সঠিক নিয়ম

অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করার সঠিক নিয়ম


অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ডের নিয়ম কি? নতুন ভোটার কার্ডের জন্য কীভাবে আবেদন করতে হবে এবং নতুন আবেদনের সাথে কী কী কাগজপত্র জমা দিতে হবে সে সম্পর্কে অনেকেরই স্পষ্ট ধারণা নেই।

তাই নতুন NID কার্ড পেতে ভোগান্তিতে পড়েছেন অনেকে। একটি নতুন কার্ড পাওয়া বা নতুন ভোটার হওয়া আজকাল খুব সহজ। আপনি সহজেই অনলাইনে নতুন কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারেন এবং খুব দ্রুত ভোটার কার্ড সংগ্রহ করতে পারেন। আমি এই পোস্টের মাধ্যমে নতুন ভোটার আবেদন সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করব।

বাংলাদেশের সকল নাগরিকের শনাক্তকরণের জন্য প্রয়োজনীয় পরিচয়কে সনদ বলা হয় যাকে জাতীয় পরিচয়পত্র বা সংক্ষেপে NID বলা হয়। আপনার বয়স ১৬ হলে আপনি একটি নতুন জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারেন।

প্রথমে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে ভোটার রেজিস্ট্রেশন ফরম ২ সংগ্রহ করুন, তা পূরণ করুন এবং নতুন ভোটার হওয়ার জন্য অফিসে আবেদনসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিন। তবে এর জন্য আপনাকে প্রথমে অফিসে যেতে হবে, ফরম সংগ্রহ করতে হবে, তারপর সঠিকভাবে ফর্মটি পূরণ করতে হবে, তারপর কাগজপত্র নিয়ে অফিসে ফিরে আসতে হবে।

উল্লেখ্য, নতুন ভোটার আবেদনপত্র অনলাইনে ডাউনলোড করা যাবে না। নতুন ভোটার আবেদনপত্রের একটি অনন্য নম্বর রয়েছে, তাই আপনি যদি এটি অনলাইনে ডাউনলোড করেন তবে এটি নকল হয়ে যায়। ফলে পরবর্তীতে বিভিন্ন বিপদের সম্মুখীন হতে হয়। তাই অফিসে আবেদন করে ভোটার হওয়ার জন্য অনলাইনে নতুন ভোটার আবেদনপত্র ডাউনলোড করবেন না

দ্বিতীয়ত, কেউ অনলাইনে নতুন ভোটার হওয়ার জন্য আবেদন করতে পারেন। বাড়ি থেকে অনলাইনে আপনার আবেদন জমা দেওয়া এবং কাগজপত্র সহ অফিসে জমা দিলে অফিসে ঘন ঘন ভিজিট করার সময় এবং ঝামেলা দুটোই কমে যায়। অনলাইনে নতুন ভোটার কার্ড তৈরির নিয়ম খুবই সহজ। তাই আমি বিস্তারিত উল্লেখ করব কিভাবে অনলাইনে নতুন ভোটার হওয়ার আবেদন জমা দিতে হয়।

নতুন ভোটার আইডি কার্ড কি?

বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিকের জন্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দলিল। যে কোন দাপ্তরিক বা বেসরকারী কাজে আপনার দৈনন্দিন প্রয়োজনের জন্য এটি প্রয়োজনীয়। বর্তমানে জাতীয় পরিচয়পত্রের স্মার্ট কার্ড দেওয়া হয়।

কিভাবে ভোটার কার্ড তৈরি করবেন

ভাবছেন কিভাবে বানাবেন। একটি আদমশুমারি, যাকে এখন জনসংখ্যা আদমশুমারি বলা হয়, সাধারণত প্রতি তিন বছর পর পর পরিচালিত হয়। আদমশুমারির মাধ্যমে নতুন ভোটার নিবন্ধন করা হয়। এ সময় নির্বাচন কমিশনের লোকজন বাড়ি বাড়ি গিয়ে নতুন ভোটার তালিকা করেন। যারা এই কর্মসূচি চলাকালীন কাজে অনুপস্থিত থাকবেন তারা অনলাইনে আবেদন করে নতুন ভোটার হতে পারবেন। প্রতি বছর জানুয়ারির শেষে নতুন ভোটার তালিকা প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশন।

নতুন ভোটার কার্ডের নিয়ম 

এখন অন্যভাবে বলতে গেলে, বাংলাদেশের সকল নাগরিকের পরিচয়পত্র হল আইডি কার্ড, যাকে আমরা জাতীয় পরিচয়পত্র বা সংক্ষেপে এনআইডি বলি, তবে এটি দেশের অভ্যন্তরে পরিচয় প্রমাণের প্রধান মাধ্যম (এনআইডি) ) ১৮ বছর পূর্ণ হলে সবার জন্য ভোটার আইডি বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। তবে আজ নতুন নিয়ম নিয়ে আলোচনা হবে। নতুন নিয়ম অর্থাৎ NID-এ ভোটার হতে কী কী লাগবে?

NID কার্ড তৈরি করতে যা প্রয়োজন

আপনি অবশ্যই জানেন যে ভোটার আইডি ছাড়া আপনি অনেক সুবিধা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবেন তাই ভোটার আইডিতে নিজেকে নথিভুক্ত করা আবশ্যক। তবে কার্ড প্রদানসহ যাবতীয় কাজ নিয়ন্ত্রণ করে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। কিভাবে নতুন ভোটার হতে হয় বা ভোটার হতে কি কি লাগে বা NID পেতে কি কি প্রসেস লাগে তা নিয়ে আজকের এই পোস্টের আয়োজন কিন্তু বিষয়টা ধারাবাহিকভাবে আলোচনা করা হয়েছে যা আপনাদের অনেক উপকৃত হবে।

নতুন ভোটার হওয়ার জন্য কী কী কাগজপত্র প্রয়োজন?

নতুন ভোটার আইডি কার্ড নিবন্ধনের জন্য নির্বাচন অফিসে জমা দিতে হবে এমন কাগজপত্র নিচে দেওয়া হল

  • জন্ম পত্রের ফটোকপি
  • পিতামাতার জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি
  • চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রত্যয়ন পত্র
  • শিক্ষিত হলে এসএসসি সার্টিফিকেটসহ শিক্ষাগত সনদের সত্যায়িত ফটোকপি
  • পরীক্ষা করা হলে রক্তের গ্রুপের ফটোকপি
  • বিদ্যুৎ বিল (প্রযোজ্য হলে)
  • জমির দলিল (যদি প্রযোজ্য হয়)

ভোটার কার্ডের নতুন নিয়ম

ভোটার নিবন্ধন প্রক্রিয়া চলাকালীন আপনি আপনার এলাকায় নিবন্ধন কাজ সম্পন্ন করতে পারেন। তবে বাদ পড়লে উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে ভোটার নিবন্ধন করা যাবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে নতুন ভোটার হওয়ার জন্য যোগাযোগ করুন। তার আগে আপনি ভোটার হওয়ার জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারেন যা আমরা এই পোস্টে দেখাব পুরো প্রক্রিয়া আশা করি আপনি আমাদের সাথেই থাকবেন।

নতুন ভোটার হওয়ার নিয়ম

আপনি যদি ১৮ বছর বয়সী হন এবং ভোটার না হন তবে আপনি একটি নতুন ভোটার আইডির জন্য আবেদন করতে পারেন। নীচের নিয়মগুলি অনুসরণ করে আপনি সহজেই ভোটার হতে পারেন। ভোটার নিবন্ধন সাধারণত নভেম্বর থেকে জানুয়ারির মধ্যে সঞ্চালিত হয়। অঞ্চলভেদে সময় ভিন্ন হতে পারে।

যাইহোক, আপনি যেকোনো সময় অনলাইনে ভোটার নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে পারেন। ভোটার হিসাবে নিজেকে নিবন্ধন করতে অনলাইনে আবেদন করার পরে, আবেদনের অনুলিপিটির একটি প্রিন্টআউট নিন।

উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে জেনে নিন কবে থেকে আপনার এলাকার ছবি, ফিঙ্গার প্রিন্ট নেওয়া শুরু হবে। তিনি বলেন, আপনার এলাকার ছবি তোলা শুরু হলে আবেদনপত্র ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের সঙ্গে ছবি আনুন। এই ক্ষেত্রে, আপনার ছবি, আঙুল তোলার পরে আপনাকে একটি স্লিপ দেওয়া হবে। সেই স্লিপটি সাবধানে রাখুন। স্মার্ট কার্ড নেওয়ার সময় অবশ্যই স্লিপ বহন করতে হবে।

আইডি কার্ড তৈরি করতে কী প্রয়োজন?

অনলাইনে আবেদন করার পর, হার্ড কপি অর্থাৎ আবেদনের প্রিন্ট কপি এবং নিম্নলিখিত প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের ফটোকপি সংশ্লিষ্ট নির্বাচন অফিসে জমা দিতে হবে।

  • আপনার অনলাইন জমা দেওয়া ফর্মের প্রিন্ট কপি
  • আপনার S.S.C. বা বয়স প্রমাণের জন্য সমতুল্য পত্র
  • আপনার বয়স প্রমাণ করার জন্য আপনার জন্ম পত্র
  • বয়স প্রমাণের জন্য আপনার পাসপোর্ট/ড্রাইভিং লাইসেন্স বা কিশোর পত্র
  • আপনার বাবা, মা, পত্নীর আইডি কার্ডের ফটোকপি আবশ্যক
  • আপনার ঠিকানার প্রমাণ হিসেবে ইউটিলিটি বিল/বাড়ি ভাড়ার রসিদ/হোল্ডিং ট্যাক্সের রশিদ
  • আপনার নাগরিকত্ব [প্রযোজ্য পত্র]

Online NID Registration - অনলাইনে নতুন ভোটার কার্ড তৈরির নিয়ম

কিভাবে নতুন ভোটার আইডি কার্ড তৈরি করবেন? অনলাইনে নতুন ভোটার কার্ডের জন্য আবেদন করার নিয়ম খুবই সহজ এবং সংক্ষিপ্ত প্রক্রিয়া। যা আপনার ব্যক্তিগত তথ্য দিয়ে অনলাইনে আবেদন করে আপনার নিকটস্থ নির্বাচনী অফিসে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিয়ে করতে হবে। পরে আপনার আবেদন যাচাইয়ের পর আপনাকে ছবি এবং আঙুলের ছাপের জন্য ডাকা হবে এবং আপনাকে একটি ভোটার রেজিস্ট্রেশন স্লিপ দেওয়া হবে। ১০ থেকে ১৫ দিন পরে, আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের আবেদন অনুমোদিত হলে, আপনি অনলাইনে পরিচয়পত্র ডাউনলোড করতে পারবেন।

ভোটার নিবন্ধনের জন্য অনলাইনে আবেদন করার নিয়ম

অনলাইনে আবেদন করতে বা ভোটার হতে প্রথমে আপনাকে অনলাইন আবেদন ফর্ম পূরণ করতে হবে। মোবাইলেও আবেদন করতে পারবেন। এর জন্য আপনাকে যে কোনো ব্রাউজারের মাধ্যমে ওয়েবসাইটে গিয়ে https://services.nidw.gov.bd/ ঠিকানায় গিয়ে নতুন ভোটার নেভিগেশন বাটনে ক্লিক করে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে আবেদনপত্র পূরণ করতে হবে।

জাতীয় পরিচয়পত্র বা ভোটার আইডি যা প্রয়োজন

আপনি অবশ্যই জানেন জাতীয় আইডি কার্ড আপডেট একটি চলমান প্রক্রিয়া। তাই আপনি যেকোনো সময় অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে পারেন। এবং আপনি যদি বাংলাদেশের নাগরিক হন কিন্তু এখনও নিবন্ধিত না হন, যদি আপনার বয়স ১৬ বছর বা তার বেশি হয় কিন্তু এখনও জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য নিবন্ধিত না হন, তাহলে আপনি সহজেই অনলাইনে ফর্ম পূরণ করতে পারেন। আপনি এটি পূরণ করে একটি নতুন জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করতে পারেন।

তারপরও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ সংশ্লিষ্ট উপজেলা, থানা নির্বাচন অফিসে আবেদন জমা দিন এবং আপনার কাজ চালিয়ে যান। তারপরে আপনার সমস্ত তথ্য যাচাই করার পরে আপনার ফটোগ্রাফ এবং আঙ্গুলের ছাপ (বায়োমেট্রিক ডেটা) সরবরাহ করতে ডাকলে পরবর্তী কাজটি সম্পূর্ণ করুন।

আপনার নিম্নলিখিত যোগ্যতা থাকতে হবে:

  • আপনাকে অবশ্যই বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে।
  • আপনার বয়স ১০ বছরের কম নয়।
  • আপনি আগে জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য নিবন্ধন করেননি।

অনলাইন নতুন আইডি কার্ড এবং ভোটার নিবন্ধন প্রক্রিয়া

একটি নতুন ভোটার কার্ড তৈরি করতে যা প্রয়োজন এনআইডি অ্যাপ্লিকেশন সিস্টেমে একটি অ্যাকাউন্ট নিবন্ধন করার পদ্ধতি নীচে দেওয়া হল:

  • NID অ্যাপ্লিকেশন সিস্টেমে অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশন ট্যাবে ক্লিক করুন
  • প্রথমে ব্যক্তিগত তথ্য প্রদান করুন
  • অনলাইন আবেদন জমা দিতে হবে
  • তারপর আবেদন যাচাই
  • তারপর বায়োমেট্রিক তথ্য প্রদান (Biometric Information- Picture, Fingerprint)
  • জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড/সংগ্রহ করুন

নতুন ভোটার কার্ড অনলাইনে নিবন্ধনের নিয়মাবলী পাঠকদের জন্য এই বিষয়টি সহজ করার জন্য, আমরা ৪ টি ধাপে ধাপে ধাপে আলোচনা করেছি যা পাঠকরা সহজেই অনলাইনে নতুন ভোটার  কার্ড নিবন্ধন করতে উপকৃত হবেন।

অনলাইনে নতুন ভোটার কার্ডের জন্য আবেদন করুন

মোবাইল বা কম্পিউটার থেকে ইন্টারনেট ব্রাউজারের মাধ্যমে NID অনলাইন রেজিস্ট্রেশন আবেদন বাটনে ক্লিক করুন; আপনি https://services.nidw.gov.bd/nid-pub/register-account ওয়েবসাইট থেকে অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারেন। NID card er jonno abedon সবচেয়ে ভালো সুবিধা হলো অনলাইন জাতীয় পরিচয়পত্রে কোনো তথ্য ভুল হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। কারণ এখানে আপনি নিজেই আপনার তথ্য প্রদান করছেন। এবং আপনার দেওয়া তথ্য জাতীয় পরিচয়পত্রে প্রিন্ট করা হবে।

নতুন ভোটার হওয়ার নিয়ম

অনলাইনে নতুন ভোটার হওয়ার নিয়মগুলি একটি নতুন জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন করতে নীচের পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন৷

১. অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশন আপনাকে এই লিঙ্কে https://services.nidw.gov.bd/nid-pub/ অ্যাপ্লিকেশন সিস্টেমে বাংলাদেশ NID অ্যাপ্লিকেশন সিস্টেমে আপনার অ্যাকাউন্ট নিবন্ধন করতে হবে। নিচের ছবিটি দেখুন।

  • ভোটার আইডি কার্ডের নতুন নিয়ম



অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করার সঠিক নিয়ম



আবেদন করুন বাটনে ক্লিক করুন।


অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করার সঠিক নিয়ম


এখানে এই অপশনটি আপনার জন্ম তারিখ এবং ক্যাপচা কোড সঠিকভাবে লিখুন এবং এটি রাখুন

তারপর মোবাইল ভেরিফিকেশনের জন্য মোবাইল নম্বর দিতে হবে।

এককালীন পাসওয়ার্ড যাচাই করুন ওটিপি পাঠানো হবে এবং সাবমিট বোতামে ক্লিক করুন

আপনার মোবাইল নম্বর দিতে হবে যেটি সক্রিয় এবং যেটি এই মুহূর্তে আপনার কাছে আছে। আপনার নিজের মোবাইল নম্বর বা আপনি যার জন্য আবেদন করছেন তার মোবাইল নম্বর দিতে হবে। কারণ ভবিষ্যতে লগইন বা পাসওয়ার্ড পরিবর্তনের জন্য নম্বরটির প্রয়োজন হবে।

নতুন ভোটার আইডি কার্ড নিবন্ধন

আপনার মোবাইলে একটি ৬ সংখ্যার কোড পাঠানো হবে। মোবাইলে প্রাপ্ত ৬-সংখ্যার যাচাইকরণ পিন কোডটি লিখুন এবং পরবর্তী ধাপে যেতে সাবমিট বোতামে ক্লিক করুন।

অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করার সঠিক নিয়ম



ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম

এই পর্যায়ে আপনাকে একটি অনন্য ব্যবহারকারীর নাম এবং পাসওয়ার্ড সেট করতে হবে যা আগে ব্যবহার করা হয়নি। যাতে ভবিষ্যতে, এই ব্যবহারকারী এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করে, আপনি জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড করতে পারেন, সংশোধনের জন্য আবেদন করতে পারেন এবং অন্যান্য পরিসেবা নিতে পারেন। তবে ইংরেজি নাম হিসেবে ব্যবহারকারীর নাম দিতে সতর্ক থাকুন। পাসওয়ার্ডটি নাম এবং সংখ্যার সমন্বয়ে দিন এবং পাসওয়ার্ডটি কমপক্ষে ৮ সংখ্যার দিন।

অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করার সঠিক নিয়ম



যদি ব্যবহারকারীর নাম দেখায় যে এই ব্যবহারকারীর নামটি ইতিমধ্যেই বিদ্যমান, তাহলে আপনি বুঝতে পারবেন যে এই ব্যবহারকারীর নামটি ইতিমধ্যেই বিদ্যমান, ব্যবহারকারীর নাম পরিবর্তন করুন এবং আবার চেষ্টা করুন। মনে রাখবেন, আপনার ব্যবহারকারীর নাম অন্য কারো সাথে মেলে না। তাই সাবধানে চিন্তা করুন এবং অনন্য হতে লিখুন.

 ব্যক্তিগত তথ্য প্রদান

অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করার সঠিক নিয়ম


এই পর্যায়ে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের আবেদন পদ্ধতিতে অ্যাকাউন্ট নিবন্ধন থাকলে, আপনি নীচের মত একটি ড্যাশবোর্ড দেখতে পাবেন। আপনি স্বয়ংক্রিয়ভাবে লগ ইন করতে না পারলে, আপনি আপনার ব্যবহারকারীর নাম এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করতে পারেন।


অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করার সঠিক নিয়ম



কিভাবে জাতীয় পরিচয়পত্র ভোটার আইডি কার্ড তৈরি করবেন

http://www.ecs.gov.bd/page/registration-process এখান থেকে, আপনার নতুন জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করুন। প্রোফাইল অপশনে ক্লিক করুন এবং উপরের ডান দিক থেকে সম্পাদনা বোতামে ক্লিক করুন। তারপর আপনি নীচের মত একটি পেজ পাবেন, যেখানে আপনাকে আপনার সমস্ত ব্যক্তিগত তথ্য, অন্যান্য তথ্য এবং ঠিকানা লিখতে হবে।

অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করার সঠিক নিয়ম



নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম

প্রথম অংশ ১-এ আপনাকে আপনার সমস্ত বিবরণ লিখতে হবে এবং আপনার পিতামাতার নাম এবং জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

আপনার অভিভাবক হিসেবে, আপনি যদি আপনার বড় ভাই/বোনের তথ্য দেন, তা দিলে ভবিষ্যতের জন্য উপকার হতে পারে।

আবার, অভিভাবক হিসাবে, তারপরে, আপনাকে অবশ্যই স্বামী/স্ত্রীর বৈবাহিক অবস্থা দিতে হবে এবং জাতীয় পরিচয়পত্র অনুসারে স্বামী বা স্ত্রীর নাম দিতে হবে।

এর পর ২ য় অংশ অন্যান্য তথ্য ক্লিক করুন.


অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করার সঠিক নিয়ম




নতুন ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন

এখানে আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা, পেশা এবং ধর্ম নির্বাচন করুন। সম্ভব হলে অন্য তথ্য দিতে পারেন, না দিলে সমস্যা হবে না।

তারপর ৩য় অংশের ঠিকানা বিকল্পে যান এবং সাবধানে আপনার বর্তমান এবং স্থায়ী ঠিকানা নির্বাচন করুন।

অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করার সঠিক নিয়ম


আপনার বসবাসের দেশ নির্বাচন করুন. তারপর যে ঠিকানায় আপনি বর্তমান বা স্থায়ী ঠিকানায় ভোটার হতে চান তার পাশে টিক দিন (এই ঠিকানায় ভোটার)।

  • বর্তমান ঠিকানা এবং স্থায়ী ঠিকানা নির্বাচন করুন এবং ভোটার এলাকা নির্বাচন করুন।
  •  পরবর্তী ধাপে আপনাকে প্রয়োজনীয় পত্র আপলোড করতে হবে।

ধাপ ১ - কাগজপত্র আপলোড করুন এবং আবেদন জমা দিন

  • আপনি এই ধাপে প্রয়োজনীয় পত্র স্ক্যান কপি বা ছবি আপলোড করবেন না।
  • ভোটার আইডি কার্ডের নতুন নিয়ম
  • কোন ভুল নেই তা নিশ্চিত করতে আপনার আবেদনের বিশদটি পুনরায় পরীক্ষা করুন।
  • তথ্য সঠিক হলে, নিশ্চিত করুন এবং আপনার আবেদন জমা দিন।

অনলাইন আবেদন সম্পূর্ণ করার পরে, ড্যাশবোর্ড থেকে আপনার আবেদন ফর্মটি ডাউনলোড করুন এবং এটি A4 আকারের কাগজে প্রিন্ট করুন। আপনি যদি সিলেট জেলার ভোটার হন তবে আপনাকে সিলেট জেলা নির্বাচনের নির্বাচন অফিসে জমা দিতে হবে। . আপনার আবেদন প্রক্রিয়া শেষ.

ধাপ ২ - যাচাইকরণ

আপনার আবেদন উপজেলা বা জেলা নির্বাচন অফিস দ্বারা যাচাই করা হবে। তারা যাচাইয়ের জন্য আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারে তাই সঠিক তথ্য দিন।

ধাপ ৩- বায়োমেট্রিক্স প্রদান

উপরে উল্লিখিত কাজগুলি সম্পন্ন হলে আপনাকে বায়োমেট্রিকের জন্য ডাকা হতে পারে তারপর আবেদন যাচাইয়ের পর আপনি আপনার ছবি এবং আঙ্গুলের ছাপ (Biometric Information) দিয়ে আসবেন। আপনার আবেদন অনুমোদিত হলে ১০ থেকে ১৫ দিন পর আপনি অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড করতে পারবেন।

ধাপ ৪- ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করুন

  • এর পরে, যদি উপরে উল্লিখিত সমস্ত বিষয়গুলি সঠিক হয় এবং সমস্ত তথ্য সঠিক হয়, তবে যাচাই করার পরে, আপনার আবেদনটি অনুমোদিত হলে, আপনি আপনার প্রদত্ত মোবাইল নম্বরে একটি বার্তা পাবেন যে আপনার আবেদনটি অনুমোদিত হয়েছে।

  • আপনি আপনার NID Application System ড্যাশবোর্ড থেকে আপনার আবেদনের সর্বশেষ অবস্থা পরীক্ষা করতে পারেন।

  • আবেদনটি অনুমোদিত হলে ড্যাশবোর্ডের ডানপাশ থেকে ডাউনলোড অপশনে ক্লিক করে নতুন জাতীয় পরিচয়পত্র বা ভোটার কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন।

নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম

আপনি অনলাইনে নতুন ভোটার আইডি কার্ড তৈরির জন্য ধাপে ধাপে নিয়মগুলি শিখতে এবং বুঝতে পারেন। এই ধাপে আপনাকে আপনার আবেদনপত্র ডাউনলোড করতে হবে এবং এটি A4 আকারের কাগজে প্রিন্ট করতে হবে।

আপনাকে মুদ্রিত আবেদনপত্রের ৩৩ নম্বর কলামে আবেদনকারীর স্বাক্ষরের জায়গায় আপনার স্বাক্ষর রাখতে হবে। পিতা-মাতা বা নিকটাত্মীয়ের NID নম্বর কলাম ৩৪-এ শনাক্তকারী হিসাবে এবং ৩৫ নম্বর কলামে সনাক্তকারীর স্বাক্ষর দিতে হবে। কলাম ৪০-এ যাচাইকারীর (UP সদস্য) নাম, যাচাইকারীর ভোটার আইডি নম্বর প্রদান করে আবেদনপত্রটি পূরণ করুন। কলাম ৪১এবং কলাম ৪২ এ যাচাইকারীর স্বাক্ষর।

তারপরে, কিছু নথি মুদ্রিত অনলাইন আবেদন ফর্মের সাথে সংযুক্ত করতে হবে যেমনটি আগে উল্লেখ করা হয়েছে। আপনাদের সুবিধার্থে আমি আবার নিচে উল্লেখ করলাম।

  • অনলাইনে পূরণকৃত আবেদনপত্রের প্রিন্ট কপি
  • SSC সহ সকল সার্টিফিকেটের ফটোকপি (যা বয়স প্রমাণের জন্য ব্যবহার করা হবে)
  • জন্ম নিবন্ধন সনদের ফটোকপি (বাংলা ও ইংরেজি)।
  • বাবা-মা, ভাই-বোনের NID কার্ডের ফটোকপি
  • বাড়ির বিদ্যুৎ বিলের ফটোকপি (যা ঠিকানা প্রমাণের জন্য ব্যবহার করা হবে)
  • ভাড়া বাড়িতে বসবাস করলে বাড়ি ভাড়ার রশিদের ফটোকপি
  • হোল্ডিং ট্যাক্স রসিদ (ঠিকানা প্রমাণের জন্য ব্যবহার করা হবে) ফটোকপি
  • রক্তের গ্রুপ প্রমাণের ফটোকপি
  • বিবাহিত ব্যক্তির ক্ষেত্রে কাবিননামা/বিবাহ সনদের ফটোকপি
  • স্বামী/স্ত্রীর ভোটার আইডি কার্ড

এই সমস্ত কাগজপত্র সহ আবেদনপত্র আপনার উপজেলা নির্বাচন অফিসে জমা দিতে হবে। সমস্ত নথি যাচাই এবং বাছাইয়ের মাধ্যমে সমস্ত তথ্য সঠিক হলে এই অফিস পরবর্তী পদক্ষেপের জন্য আপনার সাথে যোগাযোগ করবে।

বায়োমেট্রিক্স প্রদান 

৩য় ধাপে উল্লিখিত প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে নতুন ভোটার আইডি কার্ডের আবেদনপত্র নির্বাচন অফিসে সব কাগজপত্রসহ জমা দেওয়ার পর কর্মকর্তারা সেগুলো যাচাই করবেন। তারপর আপনার সমস্ত নথি সঠিক হলে আপনাকে বায়োমেট্রিক তথ্য প্রদানের জন্য যোগাযোগ করতে বলা হবে।

ভোটার হওয়ার পর আপনাকে উপজেলা নির্বাচন অফিস থেকে একটি রসিদও দেওয়া হবে। আপনি রসিদ ব্যবহার করে আপনার NID খুঁজে পেতে পারেন।

ভোটার আইডি কার্ড পেতে কতক্ষণ সময় লাগে?

বায়োমেট্রিক প্রক্রিয়াকরণ শেষ হওয়ার ১০ থেকে ১৫ দিন পরে, আপনার আবেদন অনুমোদিত হলে আপনার মনোনীত মোবাইলে একটি এসএমএস পাঠানো হবে। এসএমএস পাওয়ার পর অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র বা ভোটার আইডি কার্ডের কপি ডাউনলোড করা যাবে।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক, আজ আমরা ভোটার কার্ডের নিয়ম সম্পর্কে আলোচনা করেছি। এছাড়াও NID করতে কী কী প্রয়োজন সে সম্পর্কে আরও আলোচনা করা হয়েছে। আমরা আশা করি আপনি যদি সমস্ত পদক্ষেপগুলি মনোযোগ সহকারে পড়েন তবে আপনি নতুন ভোটার আইডি কার্ডের নিয়মগুলি পেতে সক্ষম হবেন। তারপরও বুঝতে সমস্যা হলে কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে পারেন, আমরা আপনার মন্তব্যের উত্তর দিয়ে সমাধান করব।

নতুন ভোটার নিবন্ধন সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর

প্রশ্নঃ আগে সময়মতো ভোটার হতে পারিনি , এখন ভোটার হব কীভাবে?

উত্তরঃ আপনি যেকোনো সময় নতুন ভোটার হওয়ার জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারেন।


প্রশ্নঃ আমি ২০০৭/২০০৮বা ২০০৯/২০১০সালে ভোটার রেজিস্ট্রেশন করেছিলাম কিন্তু তখন আইডি কার্ড পাইনি। এখন কিভাবে পাবো ?

উত্তরঃ আপনি উপজেলা/থানার নির্বাচন অফিস থেকে আপনার কার্ড সংগ্রহ করতে পারেন। সেখানে না পাওয়া গেলে, আপনি অনলাইনে পুনরায় জারি করার জন্য আবেদন করতে পারেন। আবেদনটি অনুমোদন হয়ে গেলে আপনার মোবাইলে একটি এসএমএস পাঠানো হবে। তারপর অনলাইন থেকে আপনার NID কার্ডের কপি ডাউনলোড করুন।


প্রশ্নঃ নতুন ভোটার হওয়ার জন্য কী কী কাগজপত্র প্রয়োজন?

উত্তরঃ জন্ম নিবন্ধন পত্র, এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় পাসের পত্র (যদি থাকে), ঠিকানা প্রমাণের জন্য যেকোনো ইউটিলিটি বিলের কপি, নাগরিকত্বের সনদ, বিবাহিত পিতা-মাতা এবং স্ত্রীর এনআইডি কার্ডের ফটোকপি, পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স, টিআইএন (TIN) নম্বর (যদি যেকোনো)


প্রশ্নঃ ভোটার নিবন্ধনের ক্ষেত্রে নামের সাথে বিভিন্ন পদবী, পেশা, ধর্মীয় উপাধি, পদবী ইত্যাদি যোগ করা যাবে কি?

উত্তরঃ ভোটার তালিকা ডাটাবেস এবং জাতীয় পরিচয়পত্রে শুধুমাত্র নাম যোগ করা হয়, কোন পদবী বা উপাধি অর্জিত হয় না।

পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
মন্তব্য নেই
মন্তব্য যোগ করুন
comment url