ঠান্ডা বা গরম পানিতে গোসল কোনটি সবচেয়ে ভালো, তা জেনে নিন

ঠান্ডা বা গরম পানিতে গোসল কোনটি সবচেয়ে ভালো, তা জেনে নিন
যখন আবহাওয়া খুব গরম হয় তখন আমরা ঠান্ডা পানি দিয়ে গোসল করতে পছন্দ করি। আবার শীতের সময় হালকা গরম পানি দিয়ে। তাহলে গোসলের জন্য কোনটি ভালো? অনেকে বলেন ঠান্ডা পানি দিয়ে গোসল করা ভালো; গরম পানি দিয়ে গোসল করা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়। কিন্তু সত্য হল ঠান্ডা বা গরম পানিতে গোসল এর কিছু উপকারিতা রয়েছে। তবে, যদি আপনি গরম পানিতে গোসল করেন, আপনার খেয়াল রাখতে হবে যেনো পানি বেশি গরম না হয়, আপনাকে অবশ্যই স্বাভাবিক উষ্ণ গরম পানিতে গোসল করতে হবে।

আয়ুর্বেদ বলছে, গোসলের সময় আপনার শরীরে গরম পানি ব্যবহার করলেও মাথায় সবসময় ঠান্ডা পানি ব্যবহার করা উচিত। কারণ গরম পানি আমাদের চুল এবং চোখের জন্য খুবই ক্ষতিকর।

শরীরের ধরণ অনুযায়ী আপনি গোসলে গরম বা ঠান্ডা পানি ব্যবহার করবেন। উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি সুস্থ এবং ফিট থাকেন তবে ঠান্ডা পানিতে গোসল করুন। কারণ ঠান্ডা পানি শরীরকে সতেজ ও প্রাণবন্ত রাখে।

* আপনার যদি লিভারের সমস্যা, বদহজম, অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বা শরীরের জ্বালাপোড়া থাকে, তাহলে ঠান্ডা পানিতে গোসল করুন।

* আপনার যদি অ্যালার্জি, কাশি, সর্দি, পায়ের ব্যথা, সাইনাস, বাত থাকে তাহলে গরম পানিতে গোসল করুন।

* ছোট শিশু এবং বৃদ্ধদের জন্য গরম পানির গোসল সবচেয়ে ভালো।

* যেসব শিক্ষার্থীরা পড়াশোনায় অনেক সময় ব্যয় করে এবং পর্যাপ্ত ঘুমতে পারেন না তারা ঠান্ডা পানিতে গোসল করলে উপকৃত হবে।

* নিয়মিত ব্যায়াম যারা করেন তারা ব্যায়ামের পর গরম পানিতে গোসল করতে পারেন।

* নিয়মিত তেল দিয়ে শরীর ম্যাসাজ করে আধা ঘণ্টা পর গোসল করার অভ্যাস করুন।

* ভালো ত্বক ও স্বাস্থ্যের জন্য গোসলের পানিতে কয়েকটি নিম পাতা দিয়ে রাখুন এবং ৩০ মিনিট পর সেই পানি দিয়ে গোসল করুন।

* মনে রাখবেন, গোসলে ঠান্ডা পানির ব্যবহার কিছু পুরনো ব্যথা কমাতে পারে, চুলকানি উপশম করতে পারে, শরীরে অবাঞ্ছিত উত্তেজনা উপশমের পাশাপাশি স্নায়ুর দুর্বলতা দূর করতে সাহায্য করতে পারে।

গরম পানিতে গোসলের উপকারিতা

* আপনি যদি গোসলের পর স্বস্তি অনুভব করতে চান, তাহলে গরম পানি দিয়ে গোসল করুন। ক্লান্ত হয়ে বাড়ি ফেরার পর, একটি গরম পানির গোসলে ক্লান্তি দূর করবে।

* গরম পানিতে গোসল অবসন্ন এবং ক্লান্তি দূর করে, বিশেষ করে বিকেলে।

* মাথাব্যথা হলে গরম পানি দিয়ে গোসল করুন। এতে সাময়িকভাবে মাথাব্যথা কমে যাবে।

* ঘুম থেকে ওঠার পর মুখ ফোলা লাগছে? মুখের ফোলাভাব কমাতে গরম পানিতে গোসল করতে পারেন।

* যদি আপনি কোন নির্দিষ্ট কারণ ছাড়া উদ্বিগ্ন বোধ করেন, তাহলে গরম পানি দিয়ে গোসল করুন। এতে শরীর শিথিল থাকবে।

* গরম পানির গোসল নাকের সর্দিজনিত পানি কমায়।

* গরম পানির গোসল শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূর করে।

* গরম পানির গোসল ত্বকের লোমকূপগুলো খুলে দেয়। এতে শরীর ভালভাবে পরিষ্কার হয়।

রেফারেন্সঃ

ntvbd.com

daily-bangladesh.com

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url